১ হাজার ৮০ কোটি টাকার বাজেট

নিজস্ব প্রতিবেদক: আয় ও ব্যয় সমপরিমাণ ধরে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের (রাসিক) ২০২১-২০২২ অর্থ বছরের ১ হাজার ৮০ কোটি ২২ লাখ ৮৯ হাজার ৫৩৬ টাকা ১৬ পঁয়সার প্রস্তাবিত বাজেট অনুমোদিত হয়েছে। শনিবার (২৬ জুন) দুপুরে নগর ভবনের সিটি হলরুমে আয়োজিত জরুরী সাধারণ সভায় (বাজেট সভা) এই বাজেট অনুমোদন করা হয়। সভায় সভাপতিত্ব করেন অর্থ ও সংস্থাপন স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও রাজশাহী সিটি করপেরেশনের মেয়র এ.এইচ.এম খায়রুজ্জামান লিটন।

সভায় ২০২০-২০২১ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেটও অনুমোদিত হয়। ২০২০-২০২১ অর্থবছরে বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৯৯৬ কোটি ৭৯ লাখ ৩ হাজার ৩২৯ টাকা ৯২ পঁয়সা। সংশোধিত বাজেটে এর আকার দাঁড়িয়েছে ৫৬১ কোটি ২৩ লাখ ২৫ হাজার ৩৭ টাকা ৯৬ পঁয়সা।

সভার শুরুতে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের শহীদ সদস্যবৃন্দ, জাতীয় চার নেতা শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম, শহীদ তাজউদ্দীন আহমদ, শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী ও শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান, মহান মুক্তিযুদ্ধের সকল শহীদ এবং মহামারিতে মৃত্যুবরণকারীদের শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করা হয়।

সভায় রাসিক মেয়র বলেন, ২০১৮ সালের ৩০ জুলাই নির্বাচনে নির্বাচিত হয়ে ৫ অক্টোবর আনুষ্ঠানিকভাবে মেয়রের দায়িত্ব গ্রহণ করি। এরপর থেকে আমি ও আমার পরিষদ নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়ন এবং রাজশাহীকে আধুনিক, উন্নত, বাসযোগ্য, পরিচ্ছন্ন ও মডেল মহানগরী হিসেবে গড়ে তুলতে কাজ শুরু করি। ২০২০ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি প্রধানমন্ত্রী একনেক সভায় ২৯৩১ কোটি ৬১ লাখ ৮১ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে ‘রাজশাহী মহানগরীর সমন্বিত নগর অবকাঠামো উন্নয়ন’ প্রকল্প অনুমোদন দেন। এছাড়া তিনি রাজশাহীর উন্নয়নে অব্যাহতভাবে সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। এজন্য রাজশাহীবাসীর পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে আন্তরিক ধন্যবাদ জ্ঞাপন ও কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

মেয়র বলেন, করোনার এই দুঃসময়ে আমরা সর্বদা মানুষের পাশে আছি। ২০০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার দিয়ে বিনামূল্যে অক্সিজেন সেবা প্রদান করা হচ্ছে। প্রয়োজনে তাদেরকে খাদ্য ও ওষুধ প্রদান করা হচ্ছে। রামেক হাসপাতালকে ২টি অত্যাধুনিক ভেন্টিলেটর উইথ হাই ফ্লো ন্যাজাল ক্যানোলা প্রদান করা হয়েছে। ১২টি কেন্দ্রে ফ্রি র‌্যাপিড অ্যান্টিজেন পরীক্ষা কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। রাজশাহী সদর হাসপাতাল চালুর প্রচেষ্টা চলছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে জনসাধারণকে উদ্বুদ্ধকরণ ও সুরক্ষা সামগ্রী বিতরণ কার্যক্রম চলছে। প্রথম ঢেউয়ে সরকারিভাবে প্রাপ্ত ১৫৯৪.৮৫ মে. টন চাল ১০ কেজি করে এক লক্ষ ঊনষাট হাজার চারশত পঁচাশি জন মানুষের মাঝে বিতরণ করেছি। সরকারিভাবে প্রাপ্ত ৫৭ লক্ষ টাকা ও ২৯০০ প্যাকেট শিশু খাদ্য বিতরণ করেছি। ব্যক্তিগত উদ্যোগে ৩৩৮.৮৩২ মে. টন চাল, ৬১.০৮৪ মে.টন ডাল, ৬৪.৩৪৩ মে. টন আলু, ১৫.০০৮ মে.টন আটা সহ তেল, লবন, সবজি, পোলাও চাল, সেমাই, চিনি প্রদান করেছি।

করোনার দ্বিতীয় ঢেউ‘তে সরকারিভাবে প্রাপ্ত ৮৫.৫৫ মে.টন চাল প্রায় ৮ হাজার ৫শ ৫৫ জন মানুষের মাঝে বিতরণ করা হয়েছে। শহীদ কামারুজ্জামান ও জাহানারা ফাউন্ডেশনের উদ্যোগে ২০ হাজার পরিবারকে ঈদ উপহার দেওয়া হয়েছে। সম্প্রতি ১৮টি পেশাজীবী সংগঠনের ৪৬১৫ জনকে প্রধানমন্ত্রীর উপহার খাদ্য সামগ্রী প্রদান করেছি। রেড ক্রিসেন্টের মাধ্যমেও খাদ্য সহায়তা প্রদান করা হচ্ছে। এভাবেই সব সময় মানুষের পাশে থেকে করোনা মোকাবেলায় আমাদের কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে।

মেয়র বলেন, সিটি করপোরেশন পরিচালনায় ৯টি অগ্রাধিকার কর্মকৌশল ঠিক করেছি। সেগুলো হচ্ছে, পরিকল্পিত নগর অবকাঠামো নির্মাণের মাধ্যমে রুট পর্যায়ে নাগরিক সুবিধার উন্নয়ন। উন্নত বর্জ্য ব্যবস্থাপনা, জলাবদ্ধতা নিরসন এবং সবুজায়ন ও পরিবেশবান্ধব অবকাঠামো নির্মাণ/ উন্নয়ন এর মাধ্যমে নগরীর পরিবেশ উন্নয়ন। অপ্রচালিত আয়ের খাত সন্ধানের মাধ্যমে রাজস্ব আয় বৃদ্ধি। নগর জনস্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনা উন্নয়নের মাধ্যমে করোনা ভাইরাস, ডেঙ্গু, চিকুনগুনিয়ার প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণ। রাজস্ব ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়নের মাধ্যমে আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধি। কর্ম সম্পাদনে গতিশীলতা আনয়ন ও সেবার মান বৃদ্ধি। দাপ্তরিক কর্মকাণ্ডে স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিতকরণ। আর্থিক ও সম্পদ ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন। উন্নত চিকিৎসা সেবা সহজলভ্য করার নিমিত্তে চিকিৎসা প্রতিষ্ঠান/ইনস্টিটিউট স্থাপনের পরিকল্পনা

মেয়র আরো বলেন, রাজশাহী মহানগরীর সমন্বিত নগর অবকাঠামো উন্নয়ন’ প্রকল্পটি অনুমোদনের পর যখন রাজশাহীকে বদলে দিতে কর্মযজ্ঞ শুরু করবো, ঠিক সেই মুহুর্তে রাজশাহীতেও করোনার সংক্রমণ দেখা দেয়, স্থবির হয়ে যায় কার্যক্রম। তবে বর্তমানে করোনা মহামারির মধ্যেই প্রকল্পটির আওতায় সড়ক, ড্রেনসহ বিভিন্ন অবকাঠামো উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে। শুধু অবকাঠামো উন্নয়ন নয়, নাগরিক সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি, শিক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা, পরিবেশ ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনার উন্নয়ন, শিল্পায়ন, ব্যবসা-বাণিজ্যের প্রসার, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, সিটি কর্পোরেশনের আয় বৃদ্ধিসহ নানাবিধ প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। মহানগরীর উন্নয়ন দৃশ্যমান হয়েছে। ইতোমধ্যে আলিফ লাম মীম ভাটার মোড় হতে বুধপাড়া পূর্ব-পশ্চিমমুখি ৬.৭৯৩ কিলোমিটার ৪ লেন সংযোগ সড়ক ও ফ্লাইওভার নির্মাণ করা হয়েছে। সড়ক ও ফ্লাইওভারটি গত ১৩ মার্চ স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী তাজুল ইসলাম উদ্বোধন করেন। বিলসিমলা রেলক্রসিং থেকে কাশিয়াডাঙ্গা মোড় পর্যন্ত চার দশমিক দুই কিলোমিটার সড়কটি ৩০ ফুট থেকে ৮০ ফুটে উন্নীত করা হয়েছে। সড়কটি দৃষ্টিনন্দন প্রজাপতি সড়কবাতিতে আলোকায়ন করা হয়েছে। উপশহর মোড় হতে সোনাদিঘী মোড় এবং মালোপাড়া মোড় হতে সাগরপাড়া মোড় পর্যন্ত সড়ক প্রশস্তকরণ ও উন্নয়ন করা হয়েছে। এছাড়া নগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ও ওয়ার্ড রাস্তা ও ড্রেন নির্মাণ করা হয়েছে। রাজশাহী মহানগরীর জলাবদ্ধতা দূরীকরণার্থে নর্দমা নির্মাণসহ ৯টি প্রাইমারি নর্দমার পাশে সংযোগ সড়ক নির্মিত হয়েছে। জাতীয় গৃহায়ন কর্তৃপক্ষের মাধ্যমে রাজশাহী মহানগরীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাইটেক পার্ক সংলগ্ন পবা উপজেলাধীন হারুপুর মৌজায় স্বল্প ও মধ্যম আয়ের লোকদের জন্য ‘গৃহায়ন পদ্মা’ এবং ছোটবনগ্রামে ৬টি আধুনিক আবাসিক ভবন গড়ে তোলা হবে। উপশহরে বঙ্গবন্ধু টাওয়ার নির্মাণের কাজ প্রক্রিয়াধীন।

চলমান ও নতুন উন্নয়ন প্রকল্পের ব্যাপারে মেয়র বলেন, করোনকালেও মহানগরীর উন্নয়ন থেমে নেই। মহানগরীর সমন্বিত নগর অবকাঠামো উন্নয়ন’ শীর্ষক প্রকল্পটির আওতায় ৩০টি ওয়ার্ডে ক্ষতিগ্রস্থ ও নতুন রাস্তা এবং নর্দমা নির্মাণ কাজ চলমান রয়েছে। মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ নতুন বিলসিমলা বন্ধগেট রেল ক্রসিং হতে সিটি হাট পর্যন্ত, ভদ্রা রেল ক্রসিং হতে নওদাপাড়া নতুন বাস টার্মিনাল পর্যন্ত এবং তালাইমারী মোড় হতে কাটাখালী পর্যন্ত ৪ লেন সড়ক, সড়ক বিভক্তিকরণ ও ফুটপাথ নির্মাণ কাজে ইতিমধ্যে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। সিএন্ডবি মোড়ে বঙ্গবন্ধু ম্যুরাল নির্মিত হচ্ছে। যানজট নিরসনে ভদ্রা, শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান চত্ত্বর, বর্ণালী, নতুন বিলসিমলা, বহরমপুর, রাজশাহী কোর্ট এবং নতুনপাড়া রেলওয়ে ক্রসিং-এ বহুমুখী ব্যবহার উপযোগী ফ্লাইওভার নির্মাণে নকশা প্রণয়ন কাজে পরামর্শক নিয়োগ সম্পন্ন হয়েছে।

গোরস্থানসমূহের অবকাঠামো উন্নয়ন, ৪টি কাঁচা বাজার, কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার, নিরাপদ চলাচলে ফুটপাথ নির্মাণ, প্রাকৃতিক জলাশয় সমূহের উন্নয়ন, ওয়াকওয়ে নির্মাণ, গণশোচাগার নির্মাণ, ফুটওভার ব্রীজ ইত্যাদি অবকাঠামো নির্মাণ কাজ বাস্তবায়নে দরপত্র আহ্বান প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হাইটেক পার্কে আন্তর্জাতিক মানের একটি কনভেনশন সেন্টার নির্মাণ, ৪টি ওয়ার্ড কার্যালয়-কাম কমিউনিটি সেন্টার নির্মাণ কাজে নক্সা প্রণয়নাধীন পর্যায়ে রয়েছে। নির্ধারিত মেয়াদ জুন, ২০২৪ এর মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে মহানগরীকে নতুন রূপে দেখা যাবে।

১৬৪ কোটি ১৯ লক্ষ ২৯ হাজার টাকা ব্যয়ে আলুপট্টি মোড় হতে তালাইমারী মোড় পর্যন্ত ২.৫ কিলোমিটার সড়কটি ৪লেনে উন্নীতকরণের কাজ চলছে। ১৯৮ কোটি টাকা ব্যয়ে মহানগরীর বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার উন্নয়ন (১ম সংশোধিত) প্রকল্পের আওতায় ওয়ার্ডসমূহে ক্ষতিগ্রস্থ ও নতুন কার্পেটিং সড়ক নির্মাণ কাজ প্রায় সমাপ্ত হয়েছে। সিটি বাইপাস রাস্তা ৪ লেনে উন্নীতকরণ ও উন্নয়ন কাজ সমাপ্ত হয়েছে। উক্ত সড়কে দৃষ্টিনন্দন সড়ক বাতি স্থাপন করা হয়েছে। বীরশ্রেষ্ঠ মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর স্মরণি সড়কটির রক্ষণাবেক্ষণ কাজ সম্পন্ন হয়েছে। তাছাড়াও নিরাপদ চলাচলে ফুটপাথ নির্মাণ ও পানি নিষ্কাশনে নর্দমা নির্মাণ কাজ প্রায় সমাপ্ত হয়েছে। ৪৯ কোটি ৮৬ লক্ষ টাকা ব্যয় সাপেক্ষে ৩০টি ওয়ার্ডে ক্ষতিগ্রস্থ সড়ক ও নর্দমা সমূহের উন্নয়ন প্রকল্প চলমান।

সিটি মেয়র জানান, ৫টি নতুন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। ২৫ কোটি টাকা ব্যয়ে হযরত শাহ্ মখদুম রূপোশ (র.) দরগাহ শরীফের অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্প, ৪৮ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে জাতীয় চার নেতার অন্যতম শহীদ এ.এইচ.এম কামারুজ্জামান এঁর সমাধিসৌধ নির্মাণ প্রকল্প এবং ১১৫৪ কোটি ৬১ লাখ টাকা ব্যয়ে রাজশাহী মহানগরীর প্রাকৃতি জলাশয় সংরক্ষণ ও উন্নয়ন প্রকল্পটির সরকারের অনুমোদনের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। ৯৬৫ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে ‘রাজশাহী মহানগরীর বর্জ্য ব্যবস্থাপনার আধুনিকায়ন’ এবং ৭১১ কোটি ৯ লাখ টাকা ব্যয়ে শেখ রাসেল সায়েন্স সিটি ও সাফারি পার্ক নির্মাণ প্রকল্প প্রণায়নাধীন।

সভায় রাসিক মেয়র বলেন, অদৃশ্য ভাইরাসকে মোকাবেলা করে আমাদের উন্নয়ন অগ্রযাত্রা অব্যাহত থাকবে। করোনা সংকটের এ মূহুর্তে জাতীয় বাজেটের আলোকে রাজশাহী মহানগরীর উন্নয়ন ও নাগরিকসেবা বৃদ্ধিতে বাস্তবসম্মত পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। সেই লক্ষ্যে ২০২১-২০২২ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট প্রণয়ন করা হয়েছে। সিটি কর্পোরেশনের গৃহীত পদক্ষেপসমূহ যথাযথভাবে বাস্তবায়নে প্রয়োজন সকল নাগরিকের পরিপূর্ণ আন্তরিকতা ও সহযোগিতা। কর্পোরেশনের যেমন দায়িত্ব রয়েছে নগরবাসীর নাগরিক স্বাচ্ছন্দের ব্যবস্থা করা, তেমনিভাবে নাগরিকদেরও কর্তব্য রয়েছে কর্পোরেশনকে তার কাজে সার্বিক সহযোগিতা করা। তাই আমি নাগরিক দায়িত্ব পালন, নিয়মিত কর পরিশোধসহ সিটি কর্পোরেশনের সকল উন্নয়ন কর্মকাণ্ডে মহানগরবাসীর সার্বিক সহযোগিতা কামনা করছি।

সভায় মে উপস্থিত ছিলেন রাসিকের প্যানেল মেয়র-১ ও ১২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সরিফুল ইসাম বাবু, প্যানেল মেয়র-২ ও ১নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর রজব আলী, ২২নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল হামিদ সরকার, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড. এবিএম শরীফ উদ্দিন, সচিব মশিউর রহমান।

ইউকে/এসএম